শিরোনাম
রবিবার ২৬ মে ২০২৪
রবিবার ২৬ মে ২০২৪

সারে ভর্তুকির চাপ কমলেও সুফল আটকে ডলারে

আলোকিত সকাল প্রতিবেদক
প্রকাশিত:বুধবার ১৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৫ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
Image

আন্তর্জাতিক বাজারে সারের আকাশচুম্বি মূল্য ধীরে ধীরে কমতে থাকায় এ খাতে ভর্তুকির চাপও গত এক বছরে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা কমে এসেছে।


অবশ্য চাপ কমলেও চলতি ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে সার খাতে সরকারকে প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি গুণতে হচ্ছে, যার বড় কারণ ডলারের বিনিময় হার।


কৃষি মন্ত্রণালয়ের সার ব্যবস্থাপনা ও উপকরণ উইংয়ের তথ্য বলছে, ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে সারে ভর্তুকি দিতে হয়েছিল ৬ হাজার ৭১৬ কোটি টাকা। পরের অর্থবছরে (২০২০-২০২১) সারের দাম কিছুটা বেড়ে যাওয়ায় সাত হাজার ৮০০ কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হয়।


২০২২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ দিকে ইউক্রেইন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর আন্তর্জাতিক বাজারে সারের দাম হুহু করে বাড়তে থাকে। ওই বছর গড়ে প্রতি কেজি ইউরিয়া ৯৬ টাকা, টিএসপি ৭০ টাকা, এমওপি ৫৪ টাকা ও ডিএপি ৯৩ টাকায় কিনতে হয়েছিল।


ফলে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে সারে ভর্তুকি বাবদ সরকারকে প্রায় ২৮ হাজার কোটি টাকা খরচ করতে হয়েছিল বলে তখন কৃষিমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়। সে বছর ডলারের বিনিময় হার ছিল ৮৫ টাকা।


২০২২-২৩ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটে কৃষিতে ভর্তুকি ও প্রণোদনা বাবদ বরাদ্দ ২৬ হাজার ৬৯৩ কোটি টাকা ধরা হয়েছিল। আর ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের জন্য ভর্তুকি প্রণোদনা খাতে বরাদ্দ ধরা হয়েছে ১৭ হাজার ৫৩০ কোটি টাকা।



কৃষি মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানান, চলতি বছরও সারের দাম আগের কমতির দিকে। ফলে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে সার কিনতে সরকারের ব্যয়ও কমে আসছে।


২০২২-২০২৩ অর্থবছরে প্রায় চার বিলিয়ন ডলার মূল্যের সার আমদানি করতে হয়েছিল। আর চলতি ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে একই পরিমাণ সার আমদানি করতে লেগেছে আড়াই বিলিয়ন ডলার।


২০২২-২০২৩ অর্থবছরে আন্তর্জাতিক বাজার থেকে প্রতিটন ইউরিয়া সার গড়ে ৭৯৪ ডলার, প্রতিটন টিএসপি ১০২২ ডলার, প্রতিটন ডিএপি ১১০৪ ডলার, প্রতিটন এমওপি ৯৫৯ ডলারে কিনতে হয়েছিল।


চলতি ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরের প্রয়োজনীয় সার কেনা ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। তাতে প্রতিটন ইউরিয়া সারের খরচ গড়ে ৪১৪ ডলার কমে ৩৮০ ডলার, প্রতিটন টিএসপি সারে ৪৮২ ডলার কমে ৫৪০ ডলার, প্রতিটন ডিএপি সারে ৪৭৪ ডলার কমে ৬৩০ ডলার এবং প্রতিটন এমওপিতে ৬০৯ ডলার কমে ৩৫০ ডলার খরচ হয়েছে।


আন্তর্জাতিক বাজারে সার কেনার খরচ কমলেও টাকার বিপরীতে ডলার শক্তিশালী হওয়ায় মূল্যহ্রাসের কিছু সুবিধা বাস্তবে পাওয়া যায়নি। ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে সার কেনার ক্ষেত্রে ডলারের বিপরীতে বাংলাদেশি মুদ্রার গড় বিনিময় হার ছিল ৮৫ টাকা, যা ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে ১০৪ টাকা হয়েছে।


ডলারের মূল্য আগের অবস্থায় থাকলে ভর্তুকি বাবদ খরচ আরও প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা কমত বলে মনে করেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।


কৃষি সচিব ওয়াহিদা আক্তার বলেন, “সারে ভর্তুকির ক্ষেত্রে কৃষি মন্ত্রণালয়ের বিশেষ কোনো চাহিদা থাকে না। সারে ভর্তুকি দেওয়া সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্ত। তাই প্রতিবছর যা খরচ হয়, তাই সরকারের পক্ষ থেকে দেওয়া হয়। তবে কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে একটা সম্ভাব্য হিসাব জমা দেওয়া হয়।”


ভর্তুকি ছাড়াও বীজ, সেচসহ বিভিন্ন খাতে প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে কৃষি সচিব জানান, প্রণোদনা বাবদ গত বছর ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্দ ছিল। আগামী বাজেটেও বরাদ্দের পরিমাণ অপরিবর্তিত থাকার কথা।



তিন বছর আগে সারের বার্ষিক চাহিদা ৫৬ লাখ টন থাকলেও গত অর্থবছরে চাহিদা ছিল প্রায় ৬০ লাখ টন। এর মধ্যে ২৭ লাখ টন ইউরিয়া সার, সাড়ে সাত লাখ টন টিএসপি সার, ১৬ লাখ টন ডিএপি সার এবং ৯ লাখ টন এমওপি সার।


কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন উপজেলা কৃষি কার্যালয়ের পক্ষ থেকে মওসুম অনুযায়ী ইউরিয়া, টিএসপি, এমওপি ও ডিএপি সারের চাহিদা নিরূপণ করা হয়। নির্দিষ্ট এলাকার তালিকাভুক্ত ডিলাররা মাসে মাসে নির্ধারিত চাহিদা অনুযায়ী সরকারি গুদাম থেকে সার সংগ্রহ করেন। নির্দিষ্ট কমিশনে মুনাফা করার পর সরকার নির্ধারিত মূল্যে কৃষকের কাছে সার পৌঁছে দেন ডিলাররা।


আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বেড়ে যাওয়ায় সরকার গত দুই বছরে দুই দফায় ইউরিয়া সারের দাম বাড়িয়েছে।


২০২২ সালের অগাস্টে কৃষক প্রতিকেজি ইউরিয়া সার ১৬ টাকা করে কিনতে পারতেন। এই দাম ওই বছর অগাস্টে ৬ টাকা বাড়িয়ে ২২ টাকা এবং ২০২৩ সালের এপ্রিলে আরও ৫ টাকা বাড়িয়ে ২৭ টাকা করা হয়েছে।


একই সময়ে টিএসপির দাম ৫ টাকা বেড়ে প্রতিকেজি ২৭ টাকা, ডিএপি সারের দাম ৫ টাকা বেড়ে ২১ টাকায় এবং এমওপি সারের দাম ৫ টাকা বেড়ে ২১ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।


কৃষি মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রতি কেজি ইউরিয়ার আমদানি ব্যয় ছিল ৩২ টাকা, টিএসপি ৩৩ টাকা, এমওপি ২৩ টাকা, ডিএপি ৩৭ টাকা।


এ ব্যয়ের ওপর ভর করে সরকারকে বছর শেষে প্রায় আট হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হয়েছিল। পরের ২০২১-২২ অর্থবছরে তা অনেক বেড়ে গেলে সরকারকে বাড়তি ব্যয় করতে হয় ২০ হাজার কোটি টাকার মত; মোট ভর্তুকি বাবদ খরচ দাঁড়ায় প্রায় ২৮ হাজার কোটি টাকা।


আরও খবর




ঘূর্ণিঝড় রেমাল: হাতিয়ার ১৪ গ্রাম প্লাবিত,পানিবন্দি হাজারো মানুষ

প্রাইভেটকারের ধাক্কায় স্কুলছাত্র নিহত

পোরশায় উপজেলা চেয়ারম্যানকে মডেল প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা প্রদান

ভৈরবে কফিহাউজে চলছে রমরমা দেহ ব্যবসায়,প্রতিষ্ঠানের মালিক গ্রেফতার

ঘূর্ণিঝড় রেমাল: হাতিয়ার সঙ্গে সারা দেশের নৌ-যোগাযোগ বন্ধ

চট্টগ্রামে ঘূর্ণিঝড় রিমালের ক্ষয়ক্ষতি কমাতে বন্দরে অ্যালার্ট-৪ জারি

ধান কাটার মেশিনে শিশুর মৃত্যু, চালক গ্রেপ্তার

সোনাইমুড়ীতে সিঁধেল চুরি মামলার রহস্য উদঘাটন,সার্কেল এসপির সংবাদ সম্মেলন

ধানমন্ডিতে হকারদের সড়ক অবরোধ

সিটি করপোরেশনের ময়লার গাড়ির ধাক্কায় পোশাকশ্রমিক নিহত

আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি আনোয়ার উল হক মারা গেছেন

হজে আরও একজন বাংলাদেশির মৃত্যু

ইউনূসের বিরুদ্ধে সাড়ে ৯ কোটি টাকা অবৈধ ঋণ দেওয়ার অভিযোগ দুদকে

শাহীনকে দেশে ফেরাতে ইন্টারপোলের সহায়তা চাইবে ডিবি

সাংবাদিক হেনস্তার ব্যাপারে আমরা সতর্ক আছি : কাদের

স্যানিটারি ইন্সপেক্টর এবং তার ছেলে মিলে অর্ধকোটি টাকা আত্মসাৎ

নোয়াখালীতে ট্রাক-সিএনজি সংঘর্ষে নিহত ৪

ভৈরবে ধর্ষণের শিকার প্রেমিকা, প্রেমিক সহ আটক ৮ জন

ঘুষের টাকা নিতে গিয়ে আটক হয়ে মার খেলেন পুলিশ সদস্য

ইউপি সদস্যকে কুপিয়ে জখম করায় তরুণকে পিটিয়ে হত্যা

ভুল চিকিৎসায় মা ও নবজাতকের মৃত্যুর অভিযোগ,হসপিটালে ভাংচুর

উন্নয়নের ভেলকিতে বাংলাদেশ এখন মৃত্যু উপত্যকা: রিজভী

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠ জরিপে এগিয়ে আনারস প্রার্থী আরিফ হোসেন

খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি বন্ধের সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসছে সরকার

ইপসার উদ্যোগে মহান মে দিবস ২০২৪ উদযাপিত

অভিনয় দক্ষতায় দর্শকদের কাঁদিয়ে রাজকুমারে প্রশংসিত আহমেদ শরীফ

ব্যাড গার্লস’-এ তানিন সুবহা

সব যন্ত্রণা ভুলে গিয়েছিলাম পুত্রের মুখ দেখে

নবীগঞ্জের কৃতিসন্তান নাজমুল ইসলাম মনসুর এর স্নাতক ডিগ্রি অর্জন

বাসুদেবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে "আশা শিক্ষা কর্মসূচী"র অভিভাবক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত


এই সম্পর্কিত আরও খবর

ঘূর্ণিঝড় রেমাল: হাতিয়ার ১৪ গ্রাম প্লাবিত,পানিবন্দি হাজারো মানুষ

ঘূর্ণিঝড় রেমাল: হাতিয়ার সঙ্গে সারা দেশের নৌ-যোগাযোগ বন্ধ

চট্টগ্রামে ঘূর্ণিঝড় রিমালের ক্ষয়ক্ষতি কমাতে বন্দরে অ্যালার্ট-৪ জারি

ধানমন্ডিতে হকারদের সড়ক অবরোধ

আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি আনোয়ার উল হক মারা গেছেন

হজে আরও একজন বাংলাদেশির মৃত্যু

ইউনূসের বিরুদ্ধে সাড়ে ৯ কোটি টাকা অবৈধ ঋণ দেওয়ার অভিযোগ দুদকে

শাহীনকে দেশে ফেরাতে ইন্টারপোলের সহায়তা চাইবে ডিবি

সাংবাদিক হেনস্তার ব্যাপারে আমরা সতর্ক আছি : কাদের

রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২২